আজ ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা হানাদার মুক্ত দিবস।

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2020-2021

আজ ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা হানাদার মুক্ত দিবস।

মোঃ রবিউল হোসাইন সবুজঃ

১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারা দিয়ে আমাদের পূর্ব পুরুষরা ঝাপিয়ে পরেন মুক্তি যুদ্ধে। দীর্ঘ নয় মাস সংগ্রাম করে ছিনিয়ে নিয়ে আসেন লাল সবুজের পতাকা।
শ্রদ্ধা বরে স্বরণ করছি মহান মুক্তি যুদ্ধে শহীদ সেই সব বীরদের যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে পাওয়া আমার স্বাধীনতা আমার বাংলাদেশ। কুমিল্লা হানাদার মুক্ত দিবস ৮ ডিসেম্বর।
১৯৭১ সালের এই দিনে পাক হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত হয় কুমিল্লা।৮ ডিসেম্বর এদিন বিকাল ৪টায় কুমিল্লা টাউন হল মাঠে তৎকালীন পূর্বাঞ্চলের প্রশাসনিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মরহুম জহুর আহমেদ চৌধুরী দলীয় পতাকা ও কুমিল্লার প্রথম প্রশাসক অ্যাডভোকেট আহমদ আলী স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর রাতে মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্রবাহিনী কুমিল্লা বিমানবন্দরে পাক বাহিনীর ২২ বেলুচ রেজিমেন্টের প্রধান ঘাঁটিতে আক্রমণ শুরু করে। মিত্রবাহিনীর ১১ গুর্খা রেজিমেন্টের আর কে মজুমদারের নেতৃত্বে কুমিল্লা বিমানবন্দরের তিনদিক থেকে আক্রমণ চালানো হয়। সীমান্তবর্তী বিবির বাজার দিয়ে লে. দিদারুল আলমের নেতৃত্বে একটি দল এবং অপর দুটি দল গোমতী নদী অতিক্রম করে কুমিল্লা শহরের ভাটপাড়া দিয়ে এবং চৌদ্দগ্রামের বাঘেরচর দিয়ে এসে বিমানবন্দরের পাকসেনাদের ঘাঁটিতে আক্রমণ করে। রাতভর পাকবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে ২৬ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। কতিপয় পাকিস্তানি সেনা বিমানবন্দরের ঘাঁটি ত্যাগ করে শেষ রাতে কুমিল্লার বরুড়ার দিকে ও ময়নামতি সেনা ছাউনিতে ফিরে যায় এবং কয়েকজন আত্মসমর্পণ করে। একপর্যায়ে পাকসেনাদের বিমানবন্দরের প্রধান ঘাঁটি দখল করে মুক্তিসেনারা। এভাবেই একাত্তরের ৮ ডিসেম্বর ভোরে কুমিল্লা হানাদার মুক্ত হয়।

পূর্ববর্তী খবরঅযত্নে, অবহেলায় পড়ে আছে কুলাউড়ার স্বাধীনতা স্মৃতি স্তম্ভ।
পরবর্তী খবরমৌলভীবাজারে হানাদার মুক্ত দিবস পালন

Leave a Reply