31 C
Dhaka
Thursday, September 29, 2022

কিশোর’কে তল্লাশির ফাঁদে ফেলে বলাৎকার; গ্রেফতার পুলিশ

ফেনীতে এক কিশোরকে দেহ তল্লাশির ফাঁদে ফেলে বলাৎকার করার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছে ইউনুস আলী নামের ফেনী মডেল থানার এক পুলিশ সদস্য।

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) ওই কিশোরের মা বাদী হয়ে ওই পুলিশ সদস্যকে আসামি করে ফেনী মডেল থানায় মামলা করেন। পরে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ফেনী মডেল থানার সামনের একটি নির্জন স্থানে নিজের বিকৃত যৌনাচারের নিরাপদ স্থান হিসেবে বেছে নেয় খোদ ওই থানার পুলিশ সদস্য ইউনুস আলী। এখানে ধারণকৃত বলাৎকারের ভিডিও ভাইরালের ভয় দেখিয়ে কিশোরকে রাতে যখন-তখন এখান আসতে বাধ্য করা হতো। প্রায় রাতে চালানো হতো ঘৃণ্য এমন যৌন নির্যাতন।

ভুক্তভোগী কিশোর বলেন, প্রথমে মামলার ভয় দেখিয়ে তাকে বলাৎকার করা হয়। সেটা ধারণ করে ওই ভিডিও ইমোতে পাঠায় এবং ভাইরাল করার হুমকি দিয়ে তাকে গত কয়েকমাস ক্রমাগত বলাৎকার করে আসছে ওই পুলিশ সদস্য।

এজহারে উল্লেখ করা হয়, গেল বছরের ২৩ ডিসেম্বর ফেনীর শহরের মহিপালে দেহ তল্লাশির নামে ওই কিশোরকে আটক করে ইউনুস আলী। একপর্যায়ে তাকে নিয়ে যায় পাশ্ববর্তী একটি হোটেলে। সেখানে মামলার ভয় দেখিয়ে প্রথম দফা বলাৎকার করে ইউনুস আলি তার মোবাইল ফোনে বলাৎকারের ঘটনার ভিডিও চিত্র ধারণ করে। পরে সেই ভিডিও ভাইরালের ভয়ে ওই কিশোর নিয়মিত ইউনুস আলির লালসার শিকার হতো। একই ভয় দেখিয়ে তার কাছ থেকে নগদ টাকাও হাতিয়ে নেয় ইউনুস আলী। একপর্যায় বিকৃত রুচির ইউনুস আলি তার কিছু সহযোগীদেরও এই কিশোরের পেছনে লেলিয়ে দিয়ে অনৈতিক কাছে বাধ্য করতে চাপ দেয়। এতে বেঁকে বসে তরুণ।

একসময় ওই কিশোর নিজেকে রক্ষা করতে কৌশলে ইউনুস আলির মোবাইল ফোনটি নিয়ে গিয়ে সকল ভিডিও মুছে ফেলে। পরে ইউনুস আলিকে দেওয়া টাকা আদায়ে সে মোবাইলটি অন্যত্র বিক্রি করে দেয়। এ ঘটনার পর চুরির অভিযোগে মোবাইল উদ্ধারে পুলিশ মাঠে নামলে ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়।

এদিকে পরিবার বিষয়টি জানার পর কিশোরটির মা বাদি হয়ে বৃহস্পতিবার ফেনী মডেল থানায় পুলিশ সদস্য ইউনুস আলিকে আসামি করে ফেনী মডেল থানায় মামলা করে। অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইউনুস আলিকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণের কথা জানালেন ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ বলছে, যেহেতু অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে তাই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কারো ব্যক্তিগত দায়ভার ডিপার্টমেন্ট নেবে না।

এদিকে পুলিশ সদস্য ইউনুস আলী গ্রেফতারের পরপরই ফেনীর পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন এক আদেশে তাকে চাকুরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেন।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

Leave a Reply

লেখক থেকে আরো