চট্টগ্রামে উৎসব ছাড়া এবার বই বিতরণ শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে।

মোঃ সিরাজুল মনির, চট্টগ্রাম:- করোনা ভাইরাস নিয়েই শেষ হতে চলল আরেকটি শিক্ষাবর্ষ। আর কদিন পরই নতুন বছর। নতুন বছর মানেই নতুন ক্লাস, আর নতুন বইয়ের উৎসব। নতুন বইয়ের ঘ্রাণে শিক্ষার্থীদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস। উৎসব আমেজে নতুন বই হাতে পাওয়ার লোভে বছরের প্রথম দিনটির জন্য অপেক্ষায় থাকে সারাদেশের কয়েক কোটি শিক্ষার্থী। তবে এবার সব কিছুই যেন ব্যতিক্রম। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস এলোমেলো করে দিয়েছে সব। নতুন বইয়ের অপেক্ষা থাকলেও উৎসবের আমেজ থাকছে না এবার। কারণ, বই উৎসব না করে বিকল্প উপায়ে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা আগেই জানায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। যদিও ওই সময় বিকল্প উপায় কী হবে, দুই মন্ত্রণালয় তা স্পষ্ট করেনি। এবার শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছানোর বিকল্প উপায় নির্ধারণ করে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। অবশ্য, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা এখনো পাননি বলে জানিয়েছেন মাউশি (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর)’র কর্মকর্তারা। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী- বই উৎসবের পরিবর্তে এবার শুধু বই বিতরণ করা হবে। অর্থাৎ শিক্ষার্থী বা অভিভাবক এসে স্কুল থেকে বইগুলো সংগ্রহ করে নিয়ে যাবে। কোনো ধরনের জমায়েত করা যাবে না। অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল থেকে বই নিতে হবে। একেক দিন একেক শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে প্যাকেটজাত বই তুলে দেয়া হবে। ভিন্ন ভিন্ন দিনে ক্লাস ও রোল অনুযায়ী শিডিউল তৈরি করবে স্কুলগুলো। নির্ধারিত দিনের সুনির্দিষ্ট সময়ে শিডিউলভুক্ত ক্লাসের শিক্ষার্থীরা এসে বই সংগ্রহ করে নিয়ে যাবে।

এ তথ্য নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, বই বিতরণ উপলক্ষে স্কুলেই কোনো ভাবেই জমায়েত করা যাবে না। জমায়েত না করার জন্যই একাধিক দিনে বই বিতরণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা যাতে কোনো মতেই ঝুঁকিতে না পড়ে। তবে কয়দিনে বই বিতরণ করা হবে, তা সংশ্লিষ্ট স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। কিছু স্কুল আছে, যেখানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি। আবার তুলনামূলক কম শিক্ষার্থীর স্কুলও আছে। এক্ষেত্রে দুটি স্কুলের জন্য দু’ধরণের সিদ্ধান্ত হবে।

শহীদুল ইসলাম বলেন, স্কুলগুলোতে আগে থেকেই প্রতিজনের বই প্যাকেট/বাঁধাই করে রাখা হবে। স্কুলের শিক্ষকরা শ্রেণিভিত্তিক শিক্ষার্থীদের তালিকা করে আলাদা আলাদা সময় দিয়ে একটি সিডিউল করবেন। ওই সিডিউল অভিভাবকদের ফোনে জানিয়ে দেয়া হবে। নির্ধারিত সিডিউল অনুযায়ী শিক্ষার্থী বা অভিভাবক এসে বইগুলো নিয়ে যাবে। মোটকথা স্কুলে একই সময়ে যাতে বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থী বা অভিভাবকের জমায়েত না হয়, সেভাবেই বই বিতরণ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। বই উৎসবের তো প্রশ্নই আসে না। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সকল উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে স্কুল সংশ্লিষ্টদের কাছে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে বলেও জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম।

এদিকে, প্রাথমিকের নির্দেশনা জারি হলেও মাধ্যমিকের বই বিতরণ সংক্রান্ত নির্দেশনা এখনো পাননি বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা শিক্ষা অফিসার জিয়াউল হক হেনরী। জানতে চাইলে মাউশি (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর)’র উপ-পরিচালক (মাধ্যমিক) মো. আজিজ উদ্দিন বলেন, বই বিতরণ সংক্রান্ত মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত পেলেই আমরা এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জানিয়ে দেবো। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা পাওয়া না গেলেও মাধ্যমিকের বইও অনেকটা প্রাথমিকের নিয়মেই বিতরণ করা হবে বলে জানা গেছে। অর্থাৎ স্বাস্থ্য বিধি মেনে জমায়েত এড়িয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিতে হবে স্কুলগুলোকে।
নতুন বইয়ের তথ্য : জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য মতে, ২০২১ সালে প্রাথমিক পর্যায়ে চট্টগ্রাম জেলায় মোট বইয়ের সম্ভাব্য চাহিদা ৪৫ লাখ ৯৮ হাজার ১৩৯টি। এর মধ্যে রোববার (২৭ ডিসেম্বর) পর্যন্ত চাহিদার ৮০ শতাংশ বই স্কুলগুলোতে পৌঁছে গেছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম। অবশিষ্ট বই ১ জানুয়ারির আগেই পৌঁছে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

অন্যদিকে মাধ্যমিক পর্যায়ে জেলায় এবার ১ কোটি ৫১ লাখ ৯৭ হাজার ৭০৫টি বইয়ের চাহিদা রয়েছে বলে জেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে। গতকাল (২৭ ডিসেম্বর) পর্যন্ত চাহিদার প্রায় ৬০ শতাংশ বই পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন জেলা শিক্ষা অফিসার জিয়াউল হক হেনরী। প্রতিনিয়ত বই আসছে উল্লেখ করে মাধ্যমিকের এই জেলা শিক্ষা অফিসার বলেন, কয়েকদিনের মধ্যে বাকি বইগুলোও পাওয়া যাবে বলে আমরা আশা করছি।

পূর্ববর্তী খবরনির্বাচনের আশ্বাসে পরিবহন ধর্মঘাট স্থগিত
পরবর্তী খবর১৭ হাজার শিক্ষার্থীকে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া শিক্ষকদের সনদ ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্টিত।

Leave a Reply