চীনের শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন।

চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের করোনা টিকা প্রদান করে চীনে গমনের সুযোগ তৈরিসহ তিন দফা দাবি জানিয়েছেন।

সোমবার (২৪ মে) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা এসব দাবি জানান।

লিখিত বক্তব্যে শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘শীতকালীন অবকাশ কাটাতে এবং এবং পরবর্তীতে মহামারি ছড়িয়ে পড়লে বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ও নিজ উদ্যোগে আমরা প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থী দেশে ফিরে আসি। দেড় বছর কেটে গেলেও এখন পর্যন্ত আমরা চীনে ফিরে যেতে পারছি না। আমাদের ফেরার জন্য সরকারি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। সম্প্রতি আমাদের সমস্যা উল্লেখ করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়ে চিঠি দিলেও কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি।’

চীনের শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন।

তারা বলেন, ‘গত দেড় বছর ধরে চীনে পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। অনলাইন শিক্ষাব্যবস্থা সঠিক জ্ঞান অর্জনের জন্য পর্যাপ্ত না হওয়ায় আমরা পড়ালেখায় অনেক পিছিয়ে পড়েছি। যদি পরবর্তী সেমিস্টারের চীনে যাওয়া সম্ভব না হয় তবে আমাদের পড়ালেখা ও ক্যারিয়ার হুমকির মধ্যে পড়বে, শিক্ষার্থীরা সংকটের মধ্যে পড়বেন।’

চীনে পড়ুয়া ১০ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে অনেকে ইঞ্জিনিয়ারিং, এমবিবিএম, মাস্টার্স, পিএইচডি ও বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণা কাজ করছেন। অনেকে বৃত্তি নিয়েও পড়ালেখানা চালিয়ে যাচ্ছেন। অনেক শিক্ষার্থীর ইন্টার্নশিপে যুক্ত হওয়ার কথাও রয়েছে। এ অবস্থায় বর্তমানে হাতেকলমে ক্লাস ও গবেষণা কাজ শুরু করতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বারবার বলা হলেও চীনে ফেরত যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।’

ভুক্তভোগী আরোও শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘ইতোমধ্যে চীন সরকার তাদের দেশে প্রবেশের শর্ত হিসেবে চীনা টিকা গ্রহণের শর্ত দিয়েছে। বাংলাদেশকে চীন বেশকিছু টিকা উপহার হিসেবে পাঠিয়েছে। চীনে ফিরতে ইচ্ছুকদের এ ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আমাদের অনেকে টিকা নিতে নিবন্ধন করতে সক্ষম হলেও প্রায় দেড় হাজার শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় তারা টিকা নিবন্ধনের আওতায় আসতে পারছেন না। তাদের অনেকে জাতীয় পরিচয়পত্র পেতে আবেদন করেছেন। দ্বিতীয় ধাপে তাদেরকেও এ টিকার আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।’

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, ‘ভারত, নেপালসহ বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাস তীব্র আকার ধারণ করার পরও বিশেষ ব্যবস্থায় সেসব দেশের শিক্ষার্থীদের চীনে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। অথচ বাংলাদেশে গত সাত মাস ধরে সকল ধরনের চীনা ভিসা বন্ধ রয়েছে। দ্রুত চীনা ভিসা চালু করা না হলেও অনেক শিক্ষার্থী হুমকির মধ্যে পড়বেন।’

তাদের শিক্ষাজীবন অব্যাহত রাখতে প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের দায়িত্বশীদের সহযোগিতা কামনা করে তিনদফা দাবি তুলে ধরেন তারা।তাদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে-

১. বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পরবর্তী সেমিস্টারের মধ্যে চীনে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করা।

২. দ্রুততম সময়ে চীন গমনেচ্ছুক সকল শিক্ষার্থীকে চীনের টিকা প্রদানের ব্যবস্থা করা।

৩. দীর্ঘ সাত মাস যাবৎ বন্ধ থাকা চীনে গমনেচ্ছুক বাংলাদেশি নাগরিকদের ব্যবসায়িক, চাকরি ও পারিবারিক ভিসা পুনরায় চালুর ব্যবস্থা।

পূর্ববর্তী খবরইসরাইল যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করলে আমরা জবাব দিতে প্রস্তুত: হামাস
পরবর্তী খবরইসরাইলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষে গাজায় সামরিক মহড়া চালাল হামাস

Leave a Reply