জ্বীনের বাদশার খপ্পরে পড়ে সর্বশান্ত গৃহবধূ!

পাবনার চাটমোহরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রাতারাতি রড়লোক করে দেওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে এক গৃহবধূকে সর্বশান্ত করেছে কথিত জ্বীনের বাদশা নামের একটি প্রতারক দল।

গত এক মাস যাবৎ উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের চকউথুলী গ্রামের জুলু প্রামাণিকের স্ত্রী জাহানারা খাতুন জ্বীনের বাদশা নামের প্রতারক চক্রকে ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে সর্বশান্ত হয়ে গেছেন বলে জানা যায়।

প্রতারণার শিকার গৃহবধূ জাহানারা খাতুন আজ সোমবার (২৮ জুন) জানান, গত এক মাস আগে আমার মোবাইল ফোনে একটি ফোন কল আসে এবং এক ব্যক্তি আধ্যাত্বিক কিছু কোরআন হাদিসের আলোকে আমার সাথে কথা বলে। এরপর সে জানায় আমি আলী ও আমার স্ত্রী ফাতেমা পৃথিবীতে এসেছি মানুষের মঙ্গল করতে। অভাবী, দুঃখী মানুষদের অর্থ, সোনা, হীরা-মতি দিয়ে বড় লোক করে দিতে। বিপুল পরিমান অর্থ যে ব্যক্তি মানুষের কল্যানে ব্যয় করবে সেই পাবে আমাদের সাহায্য। এর জন্য নিজেকে পরিশুদ্ধ করতে মাজারে গরু কোরবানী দিতে হবে। তুমি যদি কোরবানি দিতে চাও তাহলে কালকের মধ্যে আমার বিকাশ নাম্বারে টাকা পাঠাও।’

তিনি আরো বলেন, এভাবে নানা ধরনের অজুহাত দেখিয়ে আমাকে সোনা, টাকা পয়সা পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ৮ হাজার, ১০ হাজার, ৩০ হাজার, ৫০ হাজার টাকা নিয়ে সর্বমোট ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা আমার নিকট থেকে নিয়ে নেয়। আমি পরিবারের কাউকে কিছু না বলে ঘরে রাখা সকল টাকা এবং আশপাশের প্রতিবেশীদের নিকট থেকে ধার দেনা করে এতো টাকা দিয়েছি। তারা আমাকে বিষয়টি কাউকে কিছু না বলার জন্য বারবার বলেছিল তাই কাউকেই কিছু বলিনি। এখন তারা আর আমার সাথে যোগাযোগ করছে না। এখন আমার পরিবারের স্বামী সন্তানরাও আমাকে নানা ভাবে তীরস্কার করছে।

ঘটনার বিষয়ে চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, এমন ঘটনার বিষয়ে ঐ গ্রাম থেকে একজন আমাকে ফোন করে বিষয়টি জানিয়েছে। আসলে এখানে জ্বীনের বাদশা নাম দিয়ে কোন প্রতারক চক্র এমন কাজ করে থাকতে পারে। তবে এবিষয়ে থানায় এসে কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পূর্ববর্তী খবরখুলনা দৈনিক ব্যবহৃত সকল পণ্যের দাম বৃদ্ধি
পরবর্তী খবরখুলনা বিভাগে করোনায় মৃত্যু হাজার ছাড়াল, শনাক্তে রেকর্ড

Leave a Reply