দর্শক – তামান্না সুলতানা নিশি

দর্শক - তামান্না সুলতানা নিশি

১৯৫২ সালের ছাত্র আন্দোলন দেখিনি,
২০১৮ সালের ছাত্র আন্দোলন দেখেছি।
১৯৯৮ সালের বর্ণা দেখিনি,
২০২০ সালের বাঁধ ভেঙে হাজারো গ্রাম পানিতে তলিয়ে যেতে দেখিছি।

মহামারীতে হাজারো মানুষের মরন দেখিনি,
প্রিয় হারানোর চিৎকার শুনিনি।
কিন্তু করোনায় লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু দেখেছি।
মানুষের চোঁখে মৃত্যুর ভয় দেখেছি, খাদ্যের সংকট দেখেছি।

ভালোমানুষের মুখোশ ধারি হাজারো লম্পট দেখেছি।
মানুষের মত অবিকল অমানুষ দেখেছি।
রাস্তায় পড়ে থাকা পাগলীর কোলে ফুটফুটে সন্তান দেখেছি।

২০১৯ সালে ফেব্রুয়ারী মাসের চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া মানুষের লাশের ঢল দেখেছি।
বাঁচতে চাওয়ার আশায় ঝুঁকি নিতে দেখেছি।
ভালোবাসার মানুষকে ছেড়ে না গিয়ে হাতেহাত রেখে হাসিমুখে মৃত্যুকে গ্রহণ করতে দেখেছি।

বহুবছরের ভালোবাসার বিচ্ছেদ দেখেছি।
৩০ বছরের সংসার করার পর তোমাকে আর ভালোলাগে না বলে দ্বিতীয় বিয়ে করতে দেখেছি।
মেনে নিতে নিতে মানিয়ে নেয়া সংসার টিকে থাকতে দেখেছি।

প্রিয় মানুষের সাথে বাঁচতে সবার সাথে লড়াই করতে দেখেছি।
পরিবারের কথা মেনে নিয়ে বিচ্ছেদ করতেও দেখেছি।
সংবাদপত্র, টেলিভিশনে মানুষের আত্নহত্যার সংবাদ দেখেছি।
হাসপাতালে বিছানায় শুয়ে আরো কিছুদিন বেঁচে থাকার জন্য মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করতে দেখেছি।

স্বার্থের জন্য ছুটে চলা স্বার্থপর দেখেছি।
ক্ষনিকের বেড়ে উঠা মধুর সম্পর্ক দেখেছি।
সময়ের কাছে নয়তো পরিস্থিতির সাথে মানুষকে বদলে যেতে দেখেছি।

বাসে কিংবা মানুষের ভীড়ে নারীদের শরীরে কিছু কুলাঙ্গারদের স্পর্শ করতে দেখেছি।
চুপ থেকে সহন করতে দেখেছি, আবার প্রতিবাদ করতে দেখেছি।

কিছু মানুষের নোংরা মানসিক কথার সম্মুখীন হতে নারীদের দেখেছি।
তরুণ-তরুণীদের চোঁখে কিছু করে দেখানোর জোশ, প্রতিশ্রুতি দেখেছি।

ছেলেদের বড় বড় ডিগ্রী থাকা সত্যেও চাকরি না পেয়ে ডিপ্রেশনে ভুকতে দেখেছি।
একাকিত্ব, মানসিক যন্ত্রণায় কাতরাতে দেখেছি।

প্রিয় মানুষের নির্মমভাবে বদলে যাওয়া রুপ দেখেছি।
বিচ্ছেদের সাথে সাথে হাজারো সম্পর্ক টিকে থাকতে দেখেছি।

আমি ভালোদেখেছি, খারাপ দেখেছি।
ধর্ষক দেখেছি,দর্শক দেখেছি।
গরিব, ধনীর ভেদাভেদ দেখেছি।
দেখেছি তো কত কিছুই, দেখার জন্যই এতো আয়োজন।
বেঁচে থাকার জন্য দেখার যে অনেক প্রয়োজন।
বেঁচে আছি বলেয় দেখে যাচ্ছি।
আরো অনেক কিছু এখনো দেখার বাকি।
এই দেখার শেষ হবে তবে জীবন নামক ট্রেন যখন মৃত্যু নামক স্টেশনে এসে থেমে যাবে।

কবিতা:- দর্শক – তামান্না সুলতানা নিশি।

পূর্ববর্তী খবরজবিতে মেধাবৃত্তি পাবেন স্নাতক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা
পরবর্তী খবরকচুয়া ২য় দিনের লকডাউন পরিস্থিতি

Leave a Reply