দাপুটে জয়েই ‌‘দুঃখ’ ভুলল চেন্নাই

টুর্নামেন্টে আটবার ফাইনাল খেলা দল, তিনবার আবার চ্যাম্পিয়ন। আইপিএলে বরাবরের ফেবারিট চেন্নাই সুপার কিংসের এবার শুরুটা হয়েছিল ভুলে যাওয়ার মতো। প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে একদম উড়ে যায় (৭ উইকেটের হার) মহেন্দ্র সিং ধোনির দল।

তবে দ্বিতীয় ম্যাচেই স্বরূপে ফিরেছে অভিজ্ঞতায় ঠাসা চেন্নাই। হারের দুঃখ তারা ভু্লেছে দাপুটে এক জয়ে। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আজ (শুক্রবার) পাঞ্জাব কিংসকে ১০৬ রানেই আটকে দিয়ে ৬ উইকেট আর ২৬ বল হাতে রেখে জিতেছে তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা।

ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে রিতুরাজ গাইকঁদকে (৫) হারালেও অভিজ্ঞ ফ্যাফ ডু প্লেসি আর মঈন আলির ব্যাটে সহজ জয়ের রাস্তা তৈরি হয়ে যায় চেন্নাইয়ের। ৩১ বলে ৭ চার আর ১ ছক্কায় ৪৬ রান করে মঈন যখন সাজঘরের পথে, চেন্নাইয়ের রান তখন ২ উইকেটে ৯০।

এরপর এক ওভারে সুরেশ রায়না (৮) আর আম্বাতি রাইডুকে (০) ফিরিয়ে পাঞ্জাবের হারের ব্যবধান যা একটু কমিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। তবে ডু প্লেসি দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে তবেই থেমেছেন। ৩৩ বলে ৩ চার, এক ছক্কায় ৩৬ রানে অপরাজিত থাকেন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান।

এর আগে চেন্নাই সুপার কিংসের ডানহাতি পেসার দীপক চাহারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে দাঁড়াতেই পারেনি পাঞ্জাব কিংস। ধুঁকতে ধুঁকতে তারা থামে ৮ উইকেটে মাত্র ১০৬ রানে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে পাঞ্জাব। ইনিংসের প্রথম ওভারেই মায়াঙ্ক আগারওয়ালকে (০) বোল্ড করেন চাহার। এরপর ৫ রান করে রানআউটের ফাঁদে পড়েন লোকেশ রাহুল। সেই শুরু।

ইনিংসের পঞ্চম ওভারে এসে মারকুটে দু্ই বিদেশিকে আউট করে পাঞ্জাবের কোমড় ভেঙে দেন দীপক চাহার। ক্রিস গেইল ১০ আর নিকোলাস পুরান করেন শূন্য। এখানেই শেষ নয়।

নিজের পরের ওভারে আরও একটি উইকেট পকেটে পুরেন চাহার, এবার সাজঘরে ফেরান দীপক হুদাকে (১০)। তাতেই ৫ উইকেটে ২৬ রানে পরিণত হয় পাঞ্জাব। যার মধ্যে চারটিই চাহারের।

এমন জায়গা থেকে আর ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন? সেটা আর পূরণ হয়নি পাঞ্জাবের। যা একটু লড়েছিলেন ছয় নম্বরে নামা শাহরুখ খান। কিন্তু ৩৬ বলে তার ৪৭ রানের ইনিংসটি কেবল দলকে লজ্জা থেকে বাঁচিয়ে একশর ঘর পার করে দিয়েছে, লড়াকু পুঁজি দিতে পারেনি।

বিধ্বংসী দীপক চাহার ৪ ওভারে মাত্র ১৩ রান দিয়ে নেন ৪ উইকেট। একটি করে উইকেট নেন স্যাম কুরান, ডোয়াইন ব্রাভো আর মঈন আলি।

পূর্ববর্তী খবরমেসির জার্সির বিনিময়ে ৫০ হাজার টিকা পাচ্ছেন লাতিন ফুটবলাররা
পরবর্তী খবর১৭ই এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

Leave a Reply