30 C
Dhaka
Saturday, November 26, 2022

দুই সিজদার মাঝের দোয়া

দুই সিজদার মাঝের দোয়া | দুই সিজদার মাঝখানের দোয়া | রুকুর মাঝের দোয়া

দুই সিজদার মাঝের দোয়া | দুই সিজদার মাঝখানের দোয়া | রুকুর মাঝের দোয়া হলোঃ

দুই সিজদার মাঝের দোয়া পড়া রাসুল (সা.)-এর শাশ্বত ‍সুন্নত। এ সম্পর্কে বিভিন্ন হাদিস বর্ণিত হয়েছে। এই সময়ের যে দোয়া রয়েছে, তা বেশ অর্থবহ ও জীবনঘনিষ্ঠ।(১)

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুল (সা.) দুই সিজদার মাঝে এই দোয়াটি পড়তেন-

اللَّهُمَّ اغْفِرْ لِي ، وَارْحَمْنِي ، وَاجْبُرْنِي ، وَاهْدِنِي ، وَارْزُقْنِي

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাগ ফিরলি, ওয়ার হামনি, ওয়াজবুরনি, ওয়াহদিনি, ওয়ারজুকনি।

অর্থ : হে আল্লাহ! আমাকে ক্ষমা করুন, আমার ওপর রহম করুন। আমার প্রয়োজন পুরো করে দিন। আমাকে সঠিক পথে পরিচালিত করুন এবং আমাকে রিজিক দান করুন। (তিরমিজি, হাদিস : ২৮৪)

হাদিসে শব্দগুলোর ক্ষেত্রে বিভিন্নতা রয়েছে। কোথাও কম, আবার কোথাও বেশি। সব মিলিয়ে এই দোয়ায় সাতটি শব্দ রয়েছে। সে হিসেবে দোয়াটির পূর্ণ রূপ এমন-

اللَّهُمَّ اغْفِرْ لِي ، وَارْحَمْنِي ، وَاجْبُرْنِي ، وَاهْدِنِي ، وَارْزُقْنِي ، وَعَافِنِي ، وَارْفَعْنِي

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাগ ফিরলি, ওয়ার হামনি, ওয়াজবুরনি, ওয়াহদিনি, ওয়ারজুকনি, ওয়া আ’ফিনি, ওয়ারফা’নি।

অর্থ : হে আল্লাহ! আমাকে ক্ষমা করুন, আমার ওপর রহম করুন। আমার প্রয়োজন পুরো করে দিন। আমাকে সঠিক পথে পরিচালিত করুন এবং আমাকে রিজিক দান করুন। আমাকে সুস্থতা দান করুন এবং আমার সম্মান বৃদ্ধি করুন।  (আবু দাউদ, হাদিস : ৮৫০; ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৮৮৮)

প্রখ্যাত হাদিসবিশারদ ইমাম নববী (রহ.) বলেন, এই ক্ষেত্রে উত্তম হলো- সবগুলো হাদিসের শব্দের সমন্বয়। তার মানে মোট সাতটি শব্দের সবগুলো দোয়ায় উল্লেখ করা। (আল-মাজমু : ৪৩৭/৩)

সবগুলো শব্দ পড়া সম্ভব না হলে বা না পড়লে, অন্তত ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলি’ পড়া যায়। হুজাইফা (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুল (সা.) দুই সিজদার মাঝে ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলি, আল্লাহুম্মাগ ফিরলি’ বলতেন। (নাসায়ি, হাদিস : ১১৪৫)(২)

হজরত হুজায়ফা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুই সিজদার মধ্যবর্তী বৈঠকে এ দোয়াটি পড়তেন-

উচ্চারণ : রব্বিগফির লী, রব্বিগফির লী। (ইবনু মাজাহ, আবু দাউদ)

অর্থ : হে আমার রব্ব! আপনি আমাকে ক্ষমা করুন। হে আমার রব্ব! আপনি আমাকে ক্ষমা করুন।(৩)

দুই সিজদার মাঝের দোয়ার বিধান

দুই সিজদার মাঝের দোয়ার বিধান: দুই সিজদার মাঝে দোয়া রয়েছে। নামাজের অন্যান্য দোয়ার মতো এই দোয়াটিও সুন্নত। তবে এ সময় দোয়া পড়ার হুকুম নিয়ে বিভিন্ন মত রয়েছে। অধিকাংশ ওলামায়ে কেরামের মতে এই দোয়াটি মুস্তাহাব। এটি নামাজের ওয়াজিবের অন্তর্ভুক্ত নয়।

হাম্বলি মাজহাব মতে এটি ওয়াজিব। কারণ, রাসুল (সা.) নিয়মতান্ত্রিকভাবে দুই সিজদার মাঝে এটি পড়তেন। আর নামাজের প্রতিটি আমল আল্লাহর জিকির থেকে খালি নয়। এবং সবগুলো জিকির ওয়াজিব। অতএব, দুই সিজদার মাঝের জিকির বা দোয়ার হুকুম অন্যান্যগুলোর মতো। সে ক্ষেত্রে অন্তত ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলি’ একবার বলা ওয়াজিব। এরচেয়ে বেশি বলা মুস্তাহাব।

তবে ‘জমহুর ওলামা’ বা অধিকাংশ ওলামায়ে কেরাম যে মত দিয়েছেন, তা শক্তিশালী ও অধিক যুক্তিযুক্ত। কারণ, ওয়াজিব হওয়ার ক্ষেত্রে স্পষ্ট কোনো দলিল নেই। আবার কিছু কিছু হাম্বলি মাজহাবের অনুসারী এই বক্তব্যটি গ্রহণ করেছেন। তাই জমহুর ওলামায়ে কেরামের বক্তব্য গ্রহণ উত্তম।(৪)

দুই সিজদার মাঝের দোয়া না পড়লে কি নামাজ হবে?

দুই সিজদার মাঝখানে জলসা বা বৈঠকে নিম্নোক্ত দোয়া পড়া মুসতাহাব। না পড়লে নামাজের কোনো ক্ষতি হয় না।

ﺍﻟﻠَّﻬُﻢَّ ﺍﻏْﻔِﺮْ ﻟِﻲ، ﻭَﺍﺭْﺣَﻤْﻨِﻲ، ﻭَﺍﺟْﺒُﺮْﻧِﻲ، ﻭَﺍﻫْﺪِﻧِﻲ، ﻭَﺍﺭْﺯُﻗْﻨِﻲ

হে রব! তুমি আমাকে মাফ করে দাও, হে রব! তুমি আমাকে মাফ করে দাও। (তিরমিযি ১/৩৮)

অর্থঃ ইয়া আল্লাহ! আমাকে মাফ করে দিন, আমার প্রতি রহম করুন, আমার অবস্থা দূরস্ত করে দিন, আমাকে হেদায়েত দিন এবং আমাকে রিজিক দান করুন।(৫) (৬)

দুই সিজদার মাঝের দোয়া | দুই সিজদার মাঝখানের দো’য়া | দুই সিজদার মাঝের দোয়ার বিধান | দুই সিজদার মাঝখানে পড়ার বিশেষ দোয়া | দুই সিজদার মাঝখানের দো’য়া | রুকুর মাঝের দোয়া

আরও পড়ুন; জুমআ কি গুনাহ মাফের বিশেষ দিন?

 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

Leave a Reply

লেখক থেকে আরো