পদ্মা নদী থেকে বালু ও মাটি চুরি! আটক ৯

মঙ্গলবার (২ মার্চ) পাবনার ঈশ্বরদী পাকশীর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আতিকুল ইসলাম ও দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানাযায়, পদ্মা নদীর ঈশ্বরদীর লক্ষ্মীকুন্ডা ইউনিয়নের নবীনগর, দাদপুর, কামালপুর ও বিলকেদা পয়েন্ট থেকে বালু ও মাটি চুরি করা একটি চক্রকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

গত কয়েক দিনে বালু ও মাটি চোরের পৃথক পৃথক অভিযানে ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে ৫টি ড্রাম ট্রাক, একটি ফিটবাডির ট্রাক, ২টি ট্রাক্টর ও একটি এস্কেভেটর (বেকু)। একই সঙ্গে দায়ের করা হয়েছে পৃথক চারটি মামলা। আসামি করা হয়েছে বালু ও মাটি চুরি চক্রের ১০ জনকে। এসব মামলায় আরো অজ্ঞাত হিসেবে পলাতক আসামি করা হয়েছে অন্তত ১৫ জনকে।

বালু ও মাটি চুরি চক্রের পলাতক আসামিরা হলেন মসলেম উদ্দিন, জামিরুল ইসলাম, হিরাজ, জনি, সানা মন্ডল, রাকিব মন্ডল, জামসেদ সরদার, আজমাল মল্লিক, সুজাউল ইসলাম ও জুলমত হোসেন। আর চুরিকৃত বালি ও মাটি পরিবহনের কাজে জড়িত থাকা আটক পরিবহন চালকরা হলেন বাদশা সরদার, শাহাদত হোসেন, এনামুল শেখ, সবুজ আলী, রিপন, নিরব, আমির হোসেন, সিরাজুল ইসলাম ও মাসুদ রানা ভোলা।

ঈশ্বরদী থানার ওসি মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা ২০১০ এর ১৫ (১) ধারাসহ ৪৩১/৩৪ পেনাল কোড ধারায় অপরাধ। যা পুলিশ নিজেই অভিযান পরিচালনা, আটক ও মামলা প্রদান করতে পারে। তাই পদ্মানদী থেকে বালু ও মাটি চুরি প্রতিরোধে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আটক ও মামলা দিয়ে অপরাধীদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হচ্ছে। একই সঙ্গে চালকদের আটকের সময় পরিবহনের কাগজপত্র না দেখাতে পারায় সেগুলো জব্দ করা হচ্ছে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির জানান, সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ও জনগণের ক্ষতি করে অবৈধভাবে আবাদি জমি ও পদ্মানদী থেকে বালু ও মাটি চুরি করে বিক্রয়ের মাধ্যমে কোনো ব্যক্তিকে লাভবান হতে দেওয়া যাবে না। পদ্মানদী ও ফসলি জমি থেকে চুরি করে যে বা যারাই বালু ও মাটি কেটে বিক্রয় করুক না কেনো তাদের কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। পরিবহনের চালকসহ মূল হোতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাদের কেউ গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। পদ্মা নদী থেকে বালু ও মাটি চুরি প্রতিরোধে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রাখা হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

পূর্ববর্তী খবর১০ দফা দাবীতে নিরাপদ সড়ক চেয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে মানববন্ধান করেছে; (বিসি) 
পরবর্তী খবরবিএনপির নেতৃত্ব আসে ইংল্যান্ড থেকে, আমি ইংল্যান্ডের নেতৃত্ব মানি না; বঙ্গবীর!

Leave a Reply