পাবনায় হত্যা মামলার ২ আসামির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার (০১ সেপ্টেম্বর) পাবনার ঈশ্বরদীতে শ্যালো ইঞ্জিন চালিত ভ্যান (করিমন) চালক আবু বকর সিদ্দিক হত্যা মামলায় ২ আসামীর মৃত্যুদন্ড এবং অপর ২ আসামীকে ৩ বছর করে সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেছেন আদালত। এছাড়া মামলায় এজাহারভুক্ত আরেক আসামীকে খালাস দেয়া হয়েছে।

পাবনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান খান এ রায় ঘোষণা করেন। পাবনার সরকারী কৌশুলী আব্দুস সামাদ খান রতন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রাপ্ত আসামীরা হল, রব্বেল (৪০), রুবেল (৩০)। কারাদন্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন, রফিকুল (৪৫) ও শিপন ( ৩৮)।

তিনি জানান, ২০১৫ সালের ৮ এপ্রিল বিকেলে পাবনা ঈশ্বরদীতে ভ্যান ভাড়া নেবার কথা বলে আবু বকরকে ফোনে ডেকে নেয় আসামীরা। এ সময় তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। পরদিন ঈশ্বরদী আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রাচীর সংলগ্ন ঝোপ থেকে তার হাত পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে ঈশ্বরদী থানায় মামলা দায়ের করে আবু বকরের পরিবার।

পুলিশ মামলার তদন্তে সন্দেহভাজন হিসেবে ঈশ্বরদী থেকে রব্বেল, রুবেল, শিপন ও রফিকুলকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের জেরার একপর্যায়ে রব্বেল ও রুবেল আবু বকরকে শ্বাসরোধ করে হত্যার কথা স্বীকার করে। রফিকুল ও শিপনের নিকট থেকে ছিনতাই হওয়া করিমন উদ্ধার করা হয়।

পরে আসামীরা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করে। দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমাণ উপস্থাপন শেষে বুধবার মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। মামলার অপর আসামী রাব্বির হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ না পাওয়ায় বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলাটির রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন আব্দুস সামাদ খান রতন ও আসামী পক্ষে ছিলেন আবুল কালাম আজাদ রেন্টু।

 

পূর্ববর্তী খবরটাইগাররা হেসে খেলেই হারাল কিউইদের
পরবর্তী খবরনলকূপ বসাতে গিয়ে গ্যাসের সন্ধান

Leave a Reply