পাবনার এক রাস্তায় বাবাকে ফেলে গেল সন্তান

পাবনার বেড়ায় এক নব্বই বছরের বেশি বৃদ্ধ বাবাকে রাস্তার পাশে ফেলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে তার সন্তানের বিরুদ্ধে। ভুক্তভোগী বৃদ্ধার নাম সৈয়দ শামছুর রহমান। তিনি নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার দয়রামপুর গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছু দিন ধরেই বৃদ্ধা লোকটি পাবনা বেড়া উপজেলার কাজিরহাট এলাকায় রাস্তার উপর অসুস্থ অবস্থায় পরে আছেন। তিনি অসুস্থতার কারণে খুব বেশি তথ্য দিতে পারছেন না। তবে তিনি তার নাম ও ঠিকানা বলতে পারছেন।

তিনি এখানে কিভাবে আসলেন তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি অনেক দিন যাবৎ পায়ের সমস্যায় ভুগছিলাম। সন্তানেরা চিকিৎসা না করে আমাকে এখানে ফেলে গিয়েছে। স্থানীয়রা জানান সে বার বার একটা কথাই সবাইকে বলছিলেন আমাকে আপনারা চিকিৎসা করান আমি ভালো হবো। আমার পা ভালো করে দিন।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নজর আসে মোহাঃ সবুর আলী বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের। তিনি তাৎক্ষণিক শুক্রবার (২২ অক্টোবর) রাত নয়টার দিকে ঐ বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে প্রথমে চিকিৎসার জন্য বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন বলে জানা গেছে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঐ বৃদ্ধের জন্য কিছু নতুন জামা কাপড় নিয়ে তাকে দেখতে যান। এসময় তার শরীরের অবস্থার দিক বিবেচনা করে ডাক্তারের সাথে কথা বলে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানোর ব্যাবস্থা করেন।

এ বিষয়ে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডাঃ ফাতেমাতুয-যোহরা বলেন, তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বৃদ্ধের পায়ে পচন ও পোকা ধরেছে এবং ডায়বেটিস উচ্চ মাত্রায় থাকায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাঃ সবুর আলী জানান, খবর পেয়ে প্রথমে বৃদ্ধকে উদ্ধার করে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা করানো হয়। বৃদ্ধের পায়ে জটিল সমস্যা দেখা দেয়ায় পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের উপ পরিচালকের সাথে কথা বলে সেখানে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং তার চিকিৎসার সকল ব্যয় ভার বেড়া উপজেলা প্রশাসন বহন করবেন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে বৃদ্ধ খুব অসুস্থ হওয়ায় কথা বলতে পারছেন না। সে জন্য তার বিষয়ে বিস্তারিত জানা সম্ভব হচ্ছে না। একটু সুস্থ হলেই সব তথ্য পাওয়া যাবে এবং তার পরিবারে কাছে তাকে হস্তান্তর করা হবে।

পূর্ববর্তী খবরবশেমুরবিপ্রবিতে বাঁধনের দুইযুগ পূর্তি উদযাপন 
পরবর্তী খবরবাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক কৌশলগত অংশীদারদের চেয়ে গভীর : শ্রিংলা

Leave a Reply