পাবনার চাটমোহর পৌরসভায় নির্বাচনে আ’লীগ প্রার্থী জয়ী..অপরদিকে ভোটকেন্দ্রে যুবকের মৃত্যু!

পাবনাঃ- পাবনার চাটমোহর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাডঃ সাখাওয়াত হোসেন সাখো (নৌকা প্রতীক) ৬ হাজার ৮১২ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপির বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রফেসর আব্দুল মান্নান (মোবাইল ফোন প্রতীক) পেয়েছেন ৮৪২ ভোট।

এছাড়া অন্যান্য প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মির্জা রেজাউল করিম দুলাল (জগ) পেয়েছেন ১৬১ ভোট এবং বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আসাদুজ্জামান আরশেদ (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৮৫ ভোট।

সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় উপজেলা পরিষদের হলরুমে ৯টি ভোট কেন্দ্রের ফলাফল পাওয়ার পর বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন।

ঘোষিত ফলাফলে মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ৭৯০০। বাতিলকৃত ভোটের সংখ্যা ৪। ভোট সংগ্রহের হার ৬৪.৫৫%।

এর আগে সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত পৌরসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। শান্তিপূর্ন ভোটগ্রহণে প্রশাসনের তরফ থেকে নেয়া হয় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১২ হাজার ২৩৭ জন। মেয়র পদে চারজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৬ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

পাবনার চাটমোহর পৌরসভায় নির্বাচনে আ’লীগ প্রার্থী জয়ী..অপরদিকে ভোটকেন্দ্রে যুবকের মৃত্যু!

এদিকে ভোট দিতে এসে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সুজন মাহমুদ (৩৭) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

মৃত সুজন উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের নটাবাড়িয়া গ্রামের শাহ মাহমুদের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে এনায়েতুল্লাহ সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট দিতে আসেন সুজন। এ সময় কেন্দ্রের বাইরে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকা সুজন হঠাৎ মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে তাকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

তার বুকে লাগানো ছিল নৌকা মার্কার ব্যাজ।
খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান পুলিশ সদস্যরা।

চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মাহমুদুল হাসান খান বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সুজন মাহমুদ নামের ওই যুবক।

নৌকা সমর্থকের পরিচয় নিশ্চিত করে চাটমোহর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম বলেন, সুজন নামে ওই যুবক আমাদের সঙ্গেই দাঁড়িয়েছিল।

তিনি ভোট দিতে এসেছিলেন। হঠাৎ সুজন মাটিতে পড়ে গেলে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, মৃত যুবকের সুরতহাল শেষে পরিবারের অভিযোগ না থাকায় মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

পূর্ববর্তী খবরঅসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো এক অন্যরকম প্রশান্তি এনে দেয় : সেলিম রেজা।
পরবর্তী খবরঈশ্বরদীতে টমেটো চাষে ব্যাবহার হচ্ছে বিষাক্ত কেমিক্যাল।

Leave a Reply