পাবনার পাকশীতে উচ্ছেদের প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি প্রদান।

আজ রবিবার (০৬ জুন) সকাল ১১টায় পাবনার ঈশ্বরদী পাকশীতে রেলওয়ের জমিতে ও রেলের কোয়ার্টারে বসবাসরত বাসিন্দাদের বাসা-বাড়িতে বিদ্যুৎ ও পানির লাইন বন্ধ না করার দাবি এবং তাদের উচ্ছেদের আগে পুনর্বাসন করার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে।

পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কার্যালয় চত্বরে এ কর্মসূচীর আয়োজন করেন আন্দোলনরত এলাকাবাসী। বিক্ষোভ মিছিল শেষে মোঃ শাহীদুল ইসলাম বিভাগীয় ব্যবস্থাপক বাংলাদেশ রেলওয়ে পাকশী এর বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।

পাবনার পাকশীতে উচ্ছেদের প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি প্রদান।

আন্দোলনরত পাকশীবাসীর আন্দোলনে সম্মান জানিয়ে বিভাগীয় ব্যবস্থাপক বাংলাদেশ রেলওয়ে পাকশী আনুষ্ঠানিকভাবে স্মারকলিপি গ্রহন করেন এবং তার বক্তব্যে বলেন, আমি আপনাদের আন্দোলন ও নাগরিক অধিকারের প্রতি সম্মান জানিয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট এই আবেদনের ব্যাপারে আলোচনা করবো।

এর আগে বিভাগীয় ব্যবস্থাপক এর কার্যালয় চত্বরে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুল ইসলাম হববুলের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, রেলওয়ে শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আলম রতন, পাবনা জেলা জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ইউপি মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম, পাকশী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, যুবনেতা একরামুল হক দোলন, পাকশীর ২নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ লিটন হোসেন, শিক্ষিকা ফাতেমা আক্তার পলি প্রমুখ।

পাবনার পাকশীতে উচ্ছেদের প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি প্রদান।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন খেলাঘরের সহসভাপতি সিরাজুল ইসলাম শিরু।

আন্দোলনরত পাকশীবাসী বলেন, সামনে ঈদুল আজহা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তা করছে সরকার, করোনাকালের এই দুঃসময়ে এখানকার কয়েক হাজার বাসিন্দাদের পুনর্বাসন না করে উচ্ছেদ করলে তারা একদিকে যেমন আবাসন হারা হবেন অন্যদিকে এই এলাকার শতশত শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা বন্ধ হয়ে যাবে। পাকশীর রেল কলোনি ও রেলের জমিতে বসবাসকারী এসব বাসিন্দাদের উচ্ছেদের আগে পুনর্বাসন করা না হলে তারা প্রাণ দিয়ে হলেও পাকশীর ঐতিহ্য ধরে রাখবেন বলে বক্তারা হুঁশিয়ার করেন।

পূর্ববর্তী খবরসুন্দরবন উপকূলীয় এলাকায় কোস্টগার্ডের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ।
পরবর্তী খবরপবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী উদযাপন

Leave a Reply