বাঘারপাড়া উপজেলার চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচন- সংবাদ সম্মেলন দুই প্রর্থীর একে অন্যের উপর হামলা মামলায় অভিযোগ।

বাঘারপাড়া উপজেলার চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচন- সংবাদ সম্মেলন দুই প্রর্থীর একে অন্যের উপর হামলা মামলায় অভিযোগ।

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আজ বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থী একে অন্যের বিরুদ্ধে হামলা, নির্যাতন ও প্রচারণায় বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছেন ।

প্রথমে বেলা তিনটায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দ্বীন মোহাম্মাদ ওরফে দিলু পাটোয়ারী।

অপার দিকে সন্ধ্যায় পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ভিক্টোরিয়া পারভীন সাথী।

সংবাদ সম্মেলনে দিলু পাটোয়ারী বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ভিক্টোরিয়া ও তার ক্যাডার বাহিনী নির্বাচনী পরিবেশ অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছেন। ভিক্টোরিয়ার দেবর টুটুলের নেতৃত্বে তার লোকজন গত ১৮ নভেম্বর আমাকে অপহরণের চেষ্টা চালান। নিজ কর্মী-সমর্থকদের উপস্থিতির কারণে অপহরণের হাত থেকে রক্ষা পেলেও আমরা আহত হই। হাসপাতালে ভর্তি হলে ভিক্টোরিয়ার লোকজন অস্ত্র নিয়ে হাসপাতাল এলাকাতেও মহড়া দেন। পরবর্তীতে ৩০ নভেম্বর আলাদিপুরে আমার কর্মী-সমর্থকদের উপর ফের হামলা চালানো হয়। সর্বশেষ ২ ডিসেম্বর রাতে বন্দবিলা ইউনিয়নে ভিক্টোরিয়ার সন্ত্রাসীরা আমার প্রচার মাইক ভাঙচুর এবং ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতংকের সৃষ্টি করে বলে সংবাদ সম্মেলনে দিলু পাটোয়ারী জানান।

তিনি আরও বলেন, একের পর এক হামলা করে তারা উল্টো আমার কর্মী-সমর্থকদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। পুলিশের কতিপয় সদস্যকে দিয়ে আমার কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আটকের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। তিনি দাবি করেন, সহিংস পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে ভিক্টোরিয়া ও তার লোকজন ভোটকেন্দ্র দখল করে ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এ অবস্থায় একটি সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে দিলু পাটোয়ারীর সাথে আওয়ামীলীগ নেতা হরিপদ রায়, আব্দুর রউফ, আজগার আলী, নূর মোহাম্মদ, আব্দুল মালেক মণ্ডল, বিল্লাল হোসেন, অবিরাম দেবনাথ, অরুণ অধিকারী, গোলাম সরোয়ার, নরেন্দ্র নাথসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে, সন্ধ্যায় পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ভিক্টোরিয়া পারভীন সাথী দিলু পাটোয়ারীর সব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন। উল্টো তার কর্মী-সমর্থক ও বহিরাগত সন্ত্রাসীরা নির্বাচনী পরিবেশ অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছেন। তারা নৌকার কর্মী ও সমর্থকদের মারপিট, প্রচার মাইক ভাঙচুর, পেট্রোল সন্ত্রাস চালাচ্ছে।

তিনি আর বলেন, দিলু পাটোয়ারীকে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে মদদ দিচ্ছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য রণজিৎ কুমার রায় ও তার পুত্র রাজীব রায়। তিনি দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। একই সাথে তিনি প্রভাব খাটিয়ে বাঘারপাড়া থানার ওসিকে দিয়ে কর্মী-সমর্থকদের হয়রানি করছেন। তিনি বাঘারপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ আল মামুনের অপসারণ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আফজাল হোসেন, জামদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম টুটুল, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান বীথিকা বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল্লাহ খন্দকার, ইঞ্জিনিয়ার বিপুল ফারাজী প্রমুখ।

উল্লেখ্য আগামী ১০ ডিসেম্বর বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে লড়ছেন ভিক্টোরিয়া পারভীন সাথী, বিদ্রোহী (আওয়ামী লীগ) দিলু পাটোয়ারীর প্রতীক আনারস এবং বিএনপি সমর্থিত শামছুর রহমান লড়ছেন ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে।

বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম কাজল সড়ক দুর্ঘটনায় গত ৭ সেপ্টেম্বর মারা যান। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়।

পূর্ববর্তী খবরচাঁপাইনবাবগঞ্জে ৪ পৌরসভায় আ.লীগের মনোনয়ন চাইলেন ২৭ জন
পরবর্তী খবররাজধানীতে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কার্যক্রম ধীরগতিতে হচ্ছে বলে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

Leave a Reply