29 C
Dhaka
Sunday, November 27, 2022

বাড়ীতে ফিরতে চান ষাটোর্ধ বৃদ্ধা।

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর ডোমারের বোড়াগাড়ী পারঘাট বাজারে দুই দিন ধরে পথ হারানো ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা পড়ে আছেন। সেখানে কারো দেওয়া কিছুই খাচ্ছেন না তিনি। স্থানীয়রা কেউই তাকে চিনতে পারছেন না। বার বার তিনি বোয়ালমারী এলাকায় তার স্বজনদের সন্ধান করার জন্য অনুরোধ করেছেন।

স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ওই বৃদ্ধা নাম-ঠিকানা সর্ম্পূণ করে বলতে না পারলেও বাড়ির ঠিকানা বলছেন বোয়ালমারী। কখনও আবার নিজের নাম বলছেন ফাতেমা। স্বামীর নাম রমজান। এর বাইরে কিছু বলতে পারছেন না তিনি। স্থানীয়রা ধারণা করছেন ওই বৃদ্ধার মানসিক সমস্যা আছে। পথ ভুলে এই বাজারে চলে এসেছেন তিনি।

অসহায় বৃদ্ধা ফাতেমাকে তার স্বজনদের কাছে ফেরাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চেষ্টা করছেন স্থানীয় সাংবাদিক রতন রায়।

তিনি বলেন, গত দুই দিন ধরে পারঘাট বাজারে স্থানীয়রা অপরিচিত বৃদ্ধাকে দেখছেন। বৃদ্ধার আলাপচারিতায় মনে হচ্ছে মানসিক সমস্যা আছে। যারা তার সঙ্গে কথা বলছেন, তাদেরকে তিনি তার বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার অনুরোধ করছেন। কারো দেওয়া কিছুই খাচ্ছেন না। বাড়ির ঠিকানা বলছেন, বোয়ালমারী, নাম ফাতেমা, স্বামী রমজান। এর বাইরে কিছু বলতে পারছেন না তিনি। বৃদ্ধার স্বজনদের খোঁজে আমিসহ স্থানীয় অনেকেই তাদের ব্যক্তিগত ফেসবুক টাইমলাইনে পোস্টও করেছেন। বৃদ্ধাকে কেউ চিনতে পারলে স্বজনদের কাছে খবর দেওয়ার অনুরোধ করেছি।

তিনি আরও বলেন, নদী পার হওয়ার কথাও বলছেন সেই বৃদ্ধা। বৃদ্ধার সাথে কথা বল যতদুর বোঝা গেল তিনি পপঞ্চগড় জেলার আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলেছেন। সেই হিসেবে পঞ্চগড় জেলায় বাড়ি হতে পারে। পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার কাজলদিঘি কালিয়াগঞ্জে বোয়ালমারী নামে একটি জায়গা আছে। তার পাশ দিয়ে বয়ে গেছে করতোয়া নদী। হতেও পারে তিনি সেই নদী পার হয়ে এসেছেন।

বোড়াগাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিমন বলেন, এ বিষয়ে আমাকে কেউ অবগত করেনি। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি যদি আত্মীয় স্বজন কারো সন্ধান পাওয়া যায় তাহলে তাদের নিকট দ্রুতই বৃদ্ধাকে তুলে দেয়া হবে।

এ বিষয়ে ডোমার থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি জানা ছিল না, আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। যেহেতু তিনি সঠিক ঠিকানা বলতে পারছেন না এ বিষয়ে আমরা তেমন কোনো সাহায্য করতে পারছি না। সঠিক ঠিকানা বলতে পারলে আমরা সংশ্লিষ্ট থানায় মেসেজ পাঠিয়ে দিতাম।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

Leave a Reply

লেখক থেকে আরো