ভর্তিচ্ছুদের পাশে নোবিপ্রবি’র বিএনসিসি ও রোভার স্কাউট

নোবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে(নোবিপ্রবি) অনুষ্ঠিত ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির গুচ্ছভুক্ত ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ভুর্তিচ্ছুদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী দুই সংগঠন বিএনসিসি ও রোভার স্কাউট ।

রোববার(২৪ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বেলা ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে গেল রবিবার(১৭ অক্টোবর) বেলা ১২টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় এ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা।

এ দুই পরীক্ষায় ভুর্তিচ্ছু নবীন শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করেছে সংগঠন দুটির সদস্যরা। নিজস্ব হেল্প বুথে পরীক্ষার্থীদের জিনিসপত্র রাখা, তথ্য দিয়ে সহায়তা করা, পরীক্ষার হল দেখিয়ে দেওয়াসহ পরীক্ষার্থীদের যেকোনো প্রয়োজনে তারা ছিলেন সদা সোচ্চার। রোভার স্কাউট ও বিএনসিসির ক্যাডেটরা দিনভর অক্লান্ত পরিশ্রম করে পরীক্ষার পরিবেশ সুন্দর রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। পরীক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ মাস্ক বিতরণ করেছেন তারা।

মাহবুবুর রহমান নামের এক ভর্তিচ্ছুর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পাসে প্রবেশ করার পর পরই রোভার স্কাউট এবং বিএনসিসির কয়েকজন সদস্য সুন্দরভাবে আমাকে সবকিছু বুঝিয়ে দিয়েছেন। একজন আমাকে হলে দিয়ে এসেছেন। এমন আন্তরিকতা আমি আর কোনো পরীক্ষার কেন্দ্রে দেখিনি। এক কথায় সবকিছু ছিলো দুর্দান্ত।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট লিডার ও শিক্ষা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ মো. সিয়াম বলেন, এ বছর প্রথমবারের মতো ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে একসাথে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত সপ্তাহের রবিবার ক ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় এবং আজ খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এই ২০ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে অন্যতম। এই কেন্দ্রে অন্য ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একযোগে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি  আরও বলেন,বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে এবং মাননীয় উপাচার্য মহোদয়ের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা- কর্মচারী, শিক্ষার্থীসহ পুরো বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। আমি বিশেষভাবে বলতে চাই, আমাদের নোবিপ্রবির বিভিন্ন সেচ্ছাসেবীমূলক সংগঠন রয়েছে যারা শৃঙ্খলা বজায় রাখার পাশাপাশি বিভিন্ন সেবা মূলক কাজ করেছে পরীক্ষাকালীন সময়ে। বিশেষ করে আমি রোভার স্কাউটদের কথা বলতে পারি, রোভাররা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরেও সোনাপুর পয়েন্ট, জেড মোড় যেখান থেকে আসতে যাতে করে ভর্তিচ্ছুদের সুবিধা হয় সেখানে তাদেরকে তথ্য সহায়তা করেছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকেশন ট্র্যাক করতে তাদেরকে সহায়তা করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় গেটে পরীক্ষার্থীদের যে আসনবিন্যাস সেটি দেখিয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য তাগিদ দেওয়ার পাশাপাশি পরীক্ষার্থীদের মাঝে হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও নতুন পরীক্ষার্থী হঠাৎ করে ক্যাম্পাসে এসে কোন ধরণের অসুবিধায় না পড়ে সেজন্য তাদেরকে যথাসাধ্য সাহায্য করেছে। সর্বোপরি প্রতিবারের ন্যায় এবারো ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে কাজ করে যাচ্ছে নোবিপ্রবি রোভার স্কাউটস গ্রুপ এবং নোবিপ্রবি বিএনসিসি ইউনিট। আমরা আশাবাদ ব্যক্ত করছি ভবিষ্যতেও তারা এই কার্যক্রম ধরে রাখবে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে রোভার স্কাউটদের মূলমন্ত্র হচ্ছে ‘সেবা’। আর এই মূলমন্ত্রে উদ্বুদ্ধ হয়েই তারা মূলত এই কাজটি করে যাচ্ছে।

পূর্ববর্তী খবরঈশ্বরদীতে ইক্ষু গবেষনা কেন্দ্রের নিয়োগে পাবনা জেলার কোটার দাবীতে মানববন্ধন
পরবর্তী খবরহিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতনের প্রতিবাদে কচুয়া মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

Leave a Reply