মুম্বাইয়ে খেলেই বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয় হয়েছি: মালিঙ্গা

আজ থেকে শুরু হচ্ছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ক্রিকেটের ১৪তম আসরের দ্বিতীয় পর্ব করোনাভাইরাসের কারণে গত মে মাসে স্থগিত করে দেয়া হয়েছিলো আইপিএলের এবারের আসর। তখন খেলা হয়েছিল ২৯টি ম্যাচ। এবার আরব আমিরাতে দ্বিতীয় পর্বে হবে বাকি ৩১ ম্যাচ।

দ্বিতীয় পর্ব শুরুর আগে এ টুর্নামেন্টের বিশেষ করে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস দলের প্রশংসায় মাতলেন শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি পেসার লাসিথ মালিঙ্গা। আইপিএলের দল মুম্বাই ইন্ডিয়ানসে খেলেই বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পেয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন এ ঝাঁকড়া চুলের পেসার।

মুম্বাইয়ের ওয়েবসাইটে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘যখন মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের হয়ে খেলেছি, আমি ভারত এবং সারা বিশ্বে অনেক ভক্ত পেয়েছি। আমি মনে করি, সব তরুণ খেলোয়াড়েরই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে খেলার একটা স্বপ্ন থাকে। এ কারণেই আমি মুম্বাইয়ের হয়ে খেয়ার অভিজ্ঞতা সবাইকে জানাতে চাই। যাদের দুর্দান্ত সাপোর্ট স্টাফ রয়েছে।’

‘২০০৮ সালে আমি নিলামে নিজের নাম তুলতে পেরেছিলাম। এরপর আমি আমার ম্যানেজারের কল পেয়েছিলাম, যিনি জানান, এবার মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের হয়ে খেলার সুযোগ পেয়েছি। তিনি আমাকে দুশ্চিন্তা করতে মানা করে জানান, দলে আরও দুজন শ্রীলঙ্কান রয়েছে। এছাড়া দলের মালিক মুখেশ আম্বানি এবং নিতা আম্বানিও অনেক ভালো বলেন।’

মালিঙ্গা আরও বলেন, ‘আমার ম্যানেজার তখন এটিও জানায় যে, দলের সাপোর্ট স্টাফ অনেক ভালো এবং সে সময়ের অভিজ্ঞ সব তারকারা রয়েছে দলে। আমার তখন মাত্র সাড়ে তিন বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা। আমার মনে হয়েছিল, সেখানে গিয়ে জাতীয় দলে খেলার জন্য ভালো অভিজ্ঞতা পাওয়া যাবে।।’

কিন্তু সেবার দুর্ভাগা ছিলেন মালিঙ্গা, ‘২০০৮ সালে আমি সত্যিই দুর্ভাগা ছিলাম। প্রথমত আমার হাঁটুর ইনজুরি ধরা পড়ে। পরে আইপিএল খেলতে পারিনি এবং জাতীয় দলের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও বাদ পড়ি। প্রায় দেড় বছর পর ডাক্তার এবং ফিজিওরা জানায়, যদি আমি পুনরায় খেলতে চাই তাহলে সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলতে হবে।’

‘যার মানে দাঁড়ায়, আমি তখন টি-টোয়েন্টি খেলতে পারতাম। কিন্তু জাতীয় দলের হয়ে সুযোগ পাচ্ছিলাম না। তাই আমার সামনে একটা উপায় ছিলো, দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়ে আইপিএল খেলা। আমি লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডকে এটি বলি এবং তারা বিষয়টি বুঝতে পারে। পরে ২০০৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়ে আমি আমার মুম্বাই দলে যোগ দেই।’

গত মঙ্গলবার সবধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন ২০১৪ সালে শ্রীলঙ্কার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক মালিঙ্গা। ২০০৪ সালের জুলাইয়ে টেস্ট ক্রিকেট দিয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে পথচলা শুরু হয় তার। এর ১৬ দিন পর হয় ওয়ানডে অভিষেক।

পরে ২০০৬ সালের জুনে শুরু করেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার। অবসরের আগে ১০৭ উইকেট নিয়ে তিনিই এই ফরম্যাটের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি।

পূর্ববর্তী খবরসৌরজগতের বাইরে জীবনের উপযোগী কিছু গ্রহের সন্ধান
পরবর্তী খবরকুবিতে ছায়া জাতিসংঘ সংস্থার ১৭ সদস্যের নতুন কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষনা

Leave a Reply