লোহাগড়ার পার-ইচাখালী গ্রামে আশ্রয়ন প্রকল্পের ৮০টি ঘর বসবাসের অযোগ্য

২০১৪ সালে নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলায় ১৬টি ব্রাক নিয়ে পার-ইচাখালী গ্রামে একটি আশ্রয়ন প্রকল্প গঠিত হয়। প্রতিটি ব্রাকে ৫টি করে রুম থাকায় মোট ৮০টি পরিবারের বসবাসের উপযোগী করা হয় গুচ্ছগ্রামটিতে। প্রায় ১০একর জমির উপর আশ্রয়ন প্রকল্পটি তৈরি করা হলেও কোন পুকুর খনন করা হয়নি সেখানে। এছাড়াও ব্যবস্থা করা হয়নি মসজিদ বিংবা কোন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের।

গত বছরে ২০/০৫/২০২০ তারিখে ঘূর্ণিঝড় আমফানের কবলে পরে আশ্রয়ন প্রকল্পের ৫টি ব্রাকের ২৫টি রুম বসবাসের অনুপযোগী হয়ে যায়। ঘূর্ণিঝড়ের ঘটনার প্রায় একবছর হতে চলেছে কিন্তু এখানো ঘরগুলো মেরামত করা হয়নি। ফলে বেশীরভাগ পরিবার স্থানটি ত্যাগ করে অন্যত্র বসবাস করছেন। এছাড়াও বেশকিছু টয়লেট ও টিউবওয়েল গত একবছর ধরে ভাঙ্গা অবস্থায় রয়েছে সেদিকে কারও নজরদারী নেই।

আশ্রয়ন প্রকল্পের সভাপতি আলম আলী সরদার বলেন, “এই মুহুর্তে আশ্রয়ন প্রকল্পের সংস্কার না করা হলে তাদের ৮০টি পরিবার সভ্যতার আলো থেকে অনেক পিছিয়ে যাবে। কেননা এখানে ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই এবং প্রথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনেক দুরে রয়েছে। তাছাড়া বর্ষার মৌসুমে রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে যায় এবং সকলের নৌকার ব্যবস্থা না থাকায় বেশ কয়েকমাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারে না ৮০টি পরিবারের ১২০জন শিক্ষার্থী। তাই আশ্রিত সকল অসহায় মানুষের দিক বিবেচনা করে অনতিবিলম্বে রাস্তা এবং আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরগুলো সংস্কার করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি আকর্ষন করছি।”

পূর্ববর্তী খবরমাস্ক না পরলে মার্কেট বন্ধ
পরবর্তী খবর‘মার্কিন অস্ত্র না থাকলে সৌদি আরব আরো আগে ইরানের সঙ্গে বন্ধুত্ব চাইত’

Leave a Reply