শীতের তীব্রতা বাড়ছে, সূর্যের মুখ দেখলো আজ।

ঈশ্বরদী প্রতিনিধিঃ ঈশ্বরদীতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। ভোর থেকে শুরু করে রাত পর্যন্ত কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে জনপদ। বইছে হিমেল বাতাস। ফলে শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছেন এ জনপদের মানুষ।

চারদিন ধরে এখানকার তাপমাত্রা ১২ থেকে ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে উঠানামা করছে। আর দুইদিন ধরে সূর্যের মুখ দেখা মেলেনি। দুদিন পর আজ দুপুর ৩টার দিকে সূর্যের দেখা মেলে। গত শুক্রবার ঈশ্বরদীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৫ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শীতের তীব্রতা বাড়ছে, সূর্যের মুখ দেখলো আজ।

কুয়াশায় ঢেকে আছে প্রকৃতি। রাতে ঘন কুয়াশার সঙ্গে গুড়িগুড়ি বৃষ্টির মত শিশির পড়ছে । সন্ধ্যার পর থেকে মানুষ খুব একটা বেশি বাড়ির বাইরে যাচ্ছেন না। শীত থেকে বাঁচতে অনেকেই লেপ-কাঁথা গায়ে জড়াচ্ছেন। শীত নিবারণে গরিব-ধনী সবাই ছুটছেন গরম কাপড়ের দোকানে।

ঈশ্বরদী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণার সূত্রে জানা গেছে, কুয়াশাচ্ছন আকাশ, সূর্যের দেখা না পাওয়া ও উত্তরের শীতল বাতাসের কারণে ঈশ্বরদীসহ আশপাশের এলাকায় কয়েকদিন ধরে শীতের তীব্রতা বেশি অনুভূত হচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে অপেক্ষাকৃত দরিদ্র ও নিন্ম আয়ের মানুষেরা শীত কষ্ট নিবারণে হকার্স মার্কেট ও ফুটপাতে ভীড় করছেন গরম কাপড় কিনতে । তারা অল্প টাকায় ফুটপাত থেকে কিনছেন গরম কাপড়।

সরজমিনে দেখা গেছে, ঈশ্বরদী শহরের স্টেশন সড়ক, বুকিং কাউন্টার, রেলগেট, রেলওয়ে হকার্স মার্কেট ও ফুটপাতে শীতের কাপড় কিনতে আসা মানুষের প্রচণ্ড ভিড়। পুরোনো কাপড়ের এই দোকানগুলো দেখে মনে হচ্ছে কেনাকাটায় মানুষের ধুম পড়েছে।
দোকানে কম দামে বিদেশি পুরোনো গরম কাপড় কিনে ক্রেতারা বাড়ি ফিরছেন। পুরোনো কাপড়ের দোকানে কাপড় কিনতে আসা কয়েকজন দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষের সাথে কথা হলে তারা জানান, এখন পর্যন্ত ঈশ্বরদীতে সরকারি বা বেসরকারি কোনো শীতবস্ত্র পাইনি। অন্যান্যবার শীতের শুরুতেই শীতবস্র বিতরন হতো এবার কোন খবর নাই।

তাই শীত ঠেকাতে তারা সস্তায় ফুটপাতের দোকান থেকে নিজ ও পরিবারের জন্য কমদামী গরম কাপড় কিনছেন ।

পূর্ববর্তী খবরঅ্যাম্বুলেন্স সহ ৪ ডাকাত আটক।
পরবর্তী খবরশিক্ষার্থীদের স্কুলে ফেরাতে প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার।

Leave a Reply