সালাহর আকুতি; ফিলিস্তিনে মানুষ হত্যা থামান

সালাহর আকুতি; ফিলিস্তিনে মানুষ হত্যা থামান
লিভারপুল ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহছবি: টুইটার

আল-আকসা মসজিদ ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের কাছে অন্যতম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত। তবে এটি ইহুদি ধর্মাবলম্বীদের কাছেও একটি পবিত্র স্থান, যাকে তারা টেম্পল মাউন্ট হিসেবে জানেন।

সেই মসজিদ প্রাঙ্গণই গত শুক্রবার থেকে রণক্ষেত্রে রূপ নিয়েছে। মূলত, ইসরায়েলের দখল করা এলাকা থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করাকে কেন্দ্র করে সেখানে উত্তেজনা চলছে। জেরুজালেম লাগোয়া এই এলাকা থেকে ফিলিস্তিনি চারটি পরিবারকে ইসরায়েলি সুপ্রিম কোর্ট উচ্ছেদের আদেশ দিতে যাচ্ছেন—এমন আশঙ্কা থেকে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ চলছিল।

শুক্রবার থেকেই বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশ তৎপরতা শুরু করে। এরপর দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হয়। গত সোমবার সেটা চূড়ান্ত রূপ নেয়। মসজিদ চত্বর থেকে জোর করে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশ রাবার বুলেট, জলকামান ও সাউন্ড গ্রেনেড ব্যবহার করে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর খবর, মসজিদ চত্বর থেকে ফিলিস্তিনিদের সরিয়ে দিতে ইসরায়েলি পুলিশের চার দিনের অভিযানে এক হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ২৮–এ দাঁড়িয়েছে। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ১০টি শিশুও রয়েছে। এ ঘটনায় ফিলিস্তিনের কট্টরপন্থী সংগঠন হামাস সোমবার মসজিদ চত্বর থেকে পুলিশ প্রত্যাহারের জন্য আলটিমেটাম দেয় ইসরায়েলকে। সেই আলটিমেটাম পার হলে ইসরায়েল লক্ষ্য করে রকেট ছোড়ে হামাস।

সবকিছু মিলিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের অবস্থা আবারও উত্তপ্ত। ফিলিস্তিনিদের কান্না ছুঁয়ে গেছে ফুটবলারদেরও। ইন্টার মিলানের মরোক্কান রাইটব্যাক আশরাফ হাকিমি থেকে শুরু করে বায়ার্ন মিউনিখের লেফটব্যাক আলফোনসো ডেভিস, রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার নুরি সাহিন—সবাই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব হয়েছেন ইসরায়েলের বিপক্ষে। তবে বেশ বড়সড় এক বিবৃতিতে গোটা ব্যাপারে বিরক্তি প্রকাশ করার পাশাপাশি ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়িয়েছেন লিভারপুলের মিসরীয় ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ।

ফিলিস্তিনে হামলা থামানোর জন্য ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে আহ্বান জানিয়েছেন সালাহ। টুইটারে নিজের প্রতিবাদ প্রকাশ করার পাশাপাশি বহু আগে তোলা আল-আকসা মসজিদের সামনে নিজের একটা ছবিও পোস্ট করেছেন লিগ ও চ্যাম্পিয়নস লিগজয়ী এই উইঙ্গার। শুধু বরিস জনসনই নন, অন্য প্রভাবশালী বিশ্বনেতাদেরও একই আহ্বান জানিয়েছেন সালাহ, ‘যে দেশটায় গত চার বছর ধরে আমার বাড়িঘর, সেই দেশের প্রধানমন্ত্রীসহ আরও সব বিশ্বনেতাকে আহ্বান জানাচ্ছি, আপনাদের সামর্থ্যের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে এই নৃশংসতা থামান। নিরস্ত্র, নিরপরাধ মানুষকে নির্বিবাদে হত্যা করা হচ্ছে, এটা থামান। এখনই। যথেষ্ট হয়েছে।’

পূর্ববর্তী খবরআল-আকসা মসজিদে ইসরায়েলি হামলায় প্রধানমন্ত্রর নিন্দা
পরবর্তী খবরচীনা সিনোফার্মার ৫ লাখ করোনা টিকা বাংলা‌দে‌শের কাছে হস্তান্তর

Leave a Reply