হাইকোর্টের মন্তব্য; পরীমণির তিনবার রিমান্ড প্রশ্নবিদ্ধ

মাদক মামলায় অভিনেত্রী পরীমণিকে তিনবার রিমান্ড দেওয়ার মতো আদেশ ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট।
মাদক মামলায় অভিনেত্রী পরীমণিকে তিনবার রিমান্ড দেওয়ার মতো আদেশ ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, আইনি ভিত্তি ছাড়া পুলিশ কাউকে রিমান্ডে চাইতে পারে না। পুলিশ বিভাগের বোঝা উচিত, মানুষের জীবন অত্যন্ত মূল্যবান।

পরীমণিকে দফায় দফায় রিমান্ডে নেওয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা এক আবেদনের লিখিত আদেশে গতকাল বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার কাজলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব কথা বলেন। পাঁচ পৃষ্ঠার লিখিত আদেশে হাইকোর্ট বলেছেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ভঙ্গ করে তদন্তকারী কর্মকর্তা পরীমণিকে তিনবার রিমান্ডে নিয়েছেন। যেখানে প্রথমবারই রিমান্ডে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার যথেষ্ট সময় পেয়েছেন। গত ২৬ আগস্ট পরীমণির বিরুদ্ধে মাদক মামলার জামিন আবেদনের ওপর দ্রুত শুনানি করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাই কোর্ট। সেই সঙ্গে লম্বা সময় পর ১৩ সেপ্টেম্বর জামিন শুনানির বিষয়ে দিন নির্ধারণের আদেশ কেন বাতিল করা হবে না, তাও জানতে চান আদালত। ১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয় এবং ওইদিন পরবর্তী শুনানির দিন নির্ধারণ করেন হাইকোর্ট।

উচ্চ আদালতের আদেশের পর গত ৩১ আগস্ট জামিন হয় পরীমণির। ১ সেপ্টেম্বর কারামুক্ত হয়ে বনানীর বাসায় ফেরেন তিনি। এর আগে গত ৪ আগস্ট প্রায় চার ঘণ্টার অভিযান শেষে বনানীর বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্যসহ পরীমণি ও তার সহযোগী দীপুকে আটক করে র‌্যাব। পরের দিন পরীমণিকে সংবাদমাধ্যমের সামনে হাজির করে তাকে গ্রেফতারের কারণ জানানোর পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে একটি মামলা করে বাহিনীটি। এরপর পরীমণিকে তিন দফায় সাত দিন রিমান্ড শেষে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে পাঠানো হয়।

পূর্ববর্তী খবরছেলের দায়ের কোপে প্রাণ গেল বাবার
পরবর্তী খবরপাবনা জেলা পুলিশের উদ্দ্যেগে ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া বাজারে সিসি ক্যামেরার উদ্বোধন

Leave a Reply