ঈদ স্পেশাল রেসিপি: গরুর মাংসের ভর্তা।

আর মাত্র একদিন বাকি তার পরেই কোরবানির ঈদ। আর এই ঈদের আনন্দ কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেয় বাহারী সব রেসিপি। ঈদের দিন ঘরে ঘরে তৈরি হয় মাংসের হরেক ধরণের খাবার। তবে আয়েশ করে খেতে পারবেন তখনই যখন রান্নাটাও হয় জ্বিভে জল আনার মতো। তাই জেনে নিন জিভে জল আনার মতো একটি রেসিপি। রেসিপিটির নাম হলো :- “গরুর মাংসের ভর্তা। নামটি শুনেই কেমন অন্যরকম লাগছে না? হ্যা সত্যিই অন্যরকম কিছু এটি। তবে জেনে নিন কিভাবে তৈরি করবেন সেই অন্যরকম রেসিপিটি।

উপকরণ—১ :

১. গরুর মাংস চর্বিসহ ৫ কেজি (২৫০ গ্রাম ওজনের বড় বড় খণ্ড করা),

২. পেঁয়াজ কাটা আধা কেজি,

৩. আদাবাটা সিকি (এক কাপের চার ভাগের এক ভাগ) কাপ,

৪. রসুনবাটা ২ টেবিল চামচ,

৫. তেজপাতা ৪টি,

৬. গরমমসলাবাটা ২ চা-চামচ (এলাচি, দারুচিনি, জয়ত্রী, জয়ফল),

৭. লবণ ২ টেবিল চামচ,

৮. তেল আড়াই কাপ।

উপকরণ—২ :

১. কাঁচা মরিচ ৬টি,

২. পেঁয়াজ ২টি,

৩. পুদিনাপাতাকুচি ১ কাপ,

৪. টমেটোকুচি আধা কাপ,

৫. তেল আধা কাপ

৬. মাংস ৫০০ গ্রাম।

 

প্রণালি :

গরুর মাংসে ও চর্বিতে উপকরণ-১-এর সব মসলা একত্রে মেখে জ্বাল দিন। ভালোমতো জ্বাল দিয়ে মাংস থেকে পানি বের করে নিতে হবে।

গরমের সময় প্রতিদিন এবং শীতের সময় এক দিন পরপর মাংস জ্বাল দিতে হবে।

মাংস জ্বাল দিতে দিতে পানি শুকিয়ে তেল ওপরে উঠে আসবে। এই সময়ে কিছু মাংস ভেঙে ঝুরঝুরে হয়ে যাবে আর কিছু আস্ত থাকবে।

এবার এই মাংস থেকে ৫০০ গ্রামের মতো নিয়ে টুকরা টুকরা করে ছিঁড়ে নিতে হবে।

এবার উপকরণ-২-এর সব উপাদান মেখে ৫ থেকে ৭ মিনিটের মতো চুলায় ভেজে গরম গরম পরিবেশন করুন মাংসের ভর্তা।

রন্ধনপ্রণালী অনেক বড় হলেও এর স্বাদ এর তুলনায় তা কিছুই নয়।

পূর্ববর্তী খবর২৪ জেলা পুনরুদ্ধার; ‘তালেবানের অগ্রযাত্রা হবে সাময়িক’: সেনা মুখপাত্র
পরবর্তী খবরগাড়িতে বসে টিকা নিলেন খালেদা জিয়া

Leave a Reply